Home / Breaking News / মেঘনা নদীতে স্পিডবোর্ড ছিনতাইয়ের ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যানসহ ১২জনের বিরুদ্ধে মামলা

মেঘনা নদীতে স্পিডবোর্ড ছিনতাইয়ের ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যানসহ ১২জনের বিরুদ্ধে মামলা

স্টাফ রিপোর্টার. ::
চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার মেঘনা নদী থেকে একটি স্পীডবোট নিয়ে যায় দুর্বিত্তরা ।
২৪ জুলাই বিকালে উপজেলা জহিরাবাদ ইউনিয়নের মেঘনা নদীতে একদল দুষ্কৃতীরা অতর্কিত হামলা চালিয়ে স্পীড বোটটি ছিনতাই করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় মেসার্স মেহেরিমা এন্টারপ্রাইজ নামের স্পীড বোটের মালিক মতিউর রহমান( মতিন কাজি) বাদী হয়ে মতলব উত্তর থানায় পেনাল কোড ১৮৬০ এর ১৪৩, ১১৪, ৪২৭, ৪৩৯, ও ৫০২ (২) ধারায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় বিবাদী করা হয় উপজেলার জহিরাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান সেলিম গাজী (৪০) জহিরাবাদ গ্রামের সোহেল গাজী, সম্রাট গাজী, কাজল মেম্বার, শফিক, আলী আহম্মদ, জয়পুরা গ্রামের রশিদ খান, ঠাকুরপাড়ার মুকুল প্রধান, মুক্তিরপল্লী আনা দেওয়ান, কামারিকান্দির দুলাল দেওয়ান, চর মহিষমারীর হানিফ মুন্সি, বালুচর গ্রারে গাজী নাজমুল সহ অজ্ঞাতনামা ৩০-৩৫ জনকে বিবাদী করা হয়েছে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায় ২৪ জুলাই আঃ মতিন কাজী তার নিজস্ব স্পীড বোট যোগে ড্রেজিং প্রকল্পের
সাইডে যান ওখানে যাওয়ার পরপরই স্পীড বোটটি নষ্ট হয়ে যায়। ড্রেজারের সাথে স্পীড বোটটি বেঁধে ড্রেজারের ভিতরে শ্রমিকদের সাথে কাজ করেন । ওইসময় স্হানীয় জহিরাবাদ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান সেলিম কাজের উপস্থিতিতে উল্লেখিত বিবাদীরা ও তার দলবল সহ দেশীয় অস্ত্রসন্ত্র নিয়ে
ড্রেজারের গ্লাস ভাংচুর করে প্রায় সত্তর হাজার টাকার ক্ষতি সাধন করে। ওইসময় ইঞ্জিন চালিত ট্রলারের সাথে নয় লক্ষ টাকার মূল্যের স্পীড বোটটি নিয়ে আসে।

বাদী আঃ মতিন কাজী জানান রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারনে আমার স্পীড বোটটি গাজী মুক্তারের ভাই চেয়ারম্যান সেলিম গাজী অতর্কিত হামলা চালিয়ে জোড়পূর্বকভাবে নিয়ে যায়। পুলিশ খবর পেয়ে সেলিম চেয়ারম্যান বাড়িতে অভিযান চালিয়ে স্পীড বোটটি খোঁজ পায়।

মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা মোহনপুর নৌ পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ পরিদর্শক অহিদ উল্লা জানান,আইনগত ভাবে স্পীড বোট উদ্ধার করা হবে। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, গত ২৫ জুলাই রাতে আমরা খবর পেয়ে জহিরাবাদ গিয়ে স্পীড বোটটির সন্ধান পেয়েছি। ওই সময় সহকারি পুলিশ সুপার ও মতলব উত্তর থানার ওসি উপস্থিত ছিলেন।

মতলব উত্তর থানার ওসি মুহাম্মদ শাহজাহান কামাল বলেন, স্পীড বোট নিয়ে যাওয়ার ঘটনায় বিরোধ সৃষ্টি হওয়ার আশংকায় ঘটনাস্থলে যাই। জহিরাবাদে গিয়ে স্পীড বোটের সন্ধান পেয়েছি। এ ঘটনায় মামলা হয়েছে আইন অনুযায়ী স্পীড বোটটি উদ্ধার করা হবে ।

এ বিষয় জহিরাবাদ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান সেলিম গাজী সাথে মোবাইলে যোগাযোগ চেস্টা করেও তার বক্তব্য নেয়া যায়নী।#

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com