Breaking News
Home / Breaking News / ইয়াবা কারবারিদের আত্মসমর্পণ জানুয়ারির শেষে

ইয়াবা কারবারিদের আত্মসমর্পণ জানুয়ারির শেষে

বিশেষ প্রতিনিধিঃ
ইউপি সদস্য এনামুল হক আত্মসমর্পণের জন্য রওনা হওয়ার কথা জানান ফেসবুকে।
চলমান মাদকবিরোধী অভিযানের মধ্যে ‘চিহ্নিত’ ও ‘তালিকাভুক্ত’ ইয়াবা চোরাকারবারিরা আত্মসমর্পণের জন্য কক্সবাজার শহরে জড়ো হচ্ছেন। এ মাসের শেষেই তাদের আত্মসমর্পণের আনুষ্ঠানিকতা হতে পারে বলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল জানিয়েছেন।
শুক্রবার সংবাদ মাধ্যমকে তিনি বলেন, ‘আমি তাদের (পুলিশ) বলেছি, এরা (ইয়াবা কারবারি) কারা, তাদের আইডেনটিটি যেন রেডি করে রাখে। আমরা ৩০ তারিখ, অথবা ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে যে কোনো একদিন যাব।’
গত বছর মে মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে মাদকবিরোধী অভিযান শুরুর পর প্রায় প্রতিদিনই দেশের কোথাও না কোথাও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে সন্দেহভাজন মাদক কারবারিদের হতাহতের খবর আসছে। তবে মাদক কারবারিদের তৎপরতা পুরোপুরি বন্ধ করা যায়নি।
এই অবস্থায় নতুন বছরের শুরুতে ইয়াবা কারবারিদের আত্মসমর্পণের সুযোগ নিয়ে সরকারের উচ্চপর্যায়ে আলোচনা শুরু হয়। পরে কক্সবাজারের চিহ্নিত মাদক পাচারকারীদের একটি অংশ পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে আত্মসমর্পণের আগ্রহ জানালে বিষয়টি আকার পেতে শুরু করে।
এরই মধ্যে টেকনাফ সদর ইউনিয়ন পরিষদের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য এনামুল হক গত ১৫ জানুয়ারি ফেসবুকে ঘোষণা দিয়ে প্রশাসনের কাছে আত্মসমর্পণের কথা জানালে বিষয়টি আলোচনার জন্ম দেয়।
সূত্র মতে, তার মতো শতাধিক ‘তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী’ ইতোমধ্যে কক্সবাজার শহরের কোনো এক স্থানে জড়ো হয়ে ‘নিরাপত্তা হেফাজতে’ এসেছেন।
এ বিষয়ে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন বলেন, ‘বেশ কয়েকজন ইয়াবা ব্যবসায়ীর সঙ্গে পুলিশের যোগাযোগ হয়েছে। তারা নিজেরাই যোগাযোগ করে আত্মসমর্পণের ইচ্ছে প্রকাশ করেছে। বিষয়টি নিয়ে প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট পর্যায়ে আলোচনা চলছে বলে তাদের অবহিত করেছি।’

তবে তিনি দাবি করেন, কক্সবাজারে জড়ো হওয়া ইয়াবা চোরাকারবারিদের পুলিশ হেফাজতে থাকার তথ্য ‘সঠিক নয়’।

‘তারা নিজেরাই যোগাযোগের মাধ্যমে সমন্বিত হয়েছেন বলে পুলিশ জানতে পেরেছে। তারা কক্সবাজার শহরের একটি স্থানে জড়ো হয়ে নিজেদের উদ্যোগে হেফাজতে রয়েছেন।’

কী ধরণের শর্তে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের আত্মসমর্পণের ব্যবস্থা করা হচ্ছে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, ‘স্বাভাবিক জীবনে না এলে মামলা চলবে। আর স্বা্ভাবিক জীবনে গেলে এদের মামলা আমরা দেখব।’

ইয়াবা পাচার করে বিপুল অর্থের মালিক হওয়া ব্যক্তিরা আত্মসমর্পণ করলে তাদের অবৈধ সম্পদ বৈধতা পাবে কিনা- সে প্রশ্নের সরাসরি কোনো উত্তর মন্ত্রী দেননি।

তিনি বলেন, ‘সম্পদের বিষয়… এটা দুদক বা এনবিআর দেখবে।’

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com