Home / Breaking News / শব্দনগরের দৈনিক সেরা চারটি কবিতা পড়ুন

শব্দনগরের দৈনিক সেরা চারটি কবিতা পড়ুন

তারিখ-১২.১.২১
কলমে—সঙ্গীতা ঘোষ (ভড়)
শিরোনামঃ সব হারিয়ে গেলো

শব্দ গুলো কাঁটাতারের বেড়ার মধ্যে আবদ্ধ।
দুটো রুটি রেখেছিলাম খায়নি,
এক কলসী জল ও রেখেছিলাম খায়নি,
শুধু কাঁটা তারের বেড়া দিয়ে দুটো আঙ্গুল বের করে বলছে–
“তুমি আমাকে মুক্তি দাও”।


শেষের দিনে
অভিজিৎ ব্যানার্জী
স্বরবৃত্ত ছন্দে
১২/০১/২০২২
———————————–
হেলায় গেল সাধের জীবন
করলি জীবন মাটি!
জীবের সেরা মানবরে তুই
মরলি কেবল খাটি!

আমার আমার ভাবতে গিয়ে
গড়লি সুখের বাড়ি,
শেষের কথা ভাবলি না রে
সুখকে দিলি আড়ি!

নাম-বিনা তোর জীবন মাটি
দেখ না নিজের চোখে,
ডাকলে হরি মিলত তরী
বলতো ভালো লোকে।

মানব জীবন সেরা জীবন
আর কি পাবি ঘুরে,
পাপের পাঁকে ডুবলি রে তুই
রইল যে সুখ দূরে।

দয়া-মায়া ভালোবাসা
এই জীবনের রীতি,
তা না করে দেখনা এবার
অপকর্মের স্মৃতি।


আগুনতাপে সুখস্বপ্ন পুড়ায়””
রফিকুল ইসলাম

ভালবাসা শব্দটাকে অতি যত্নে রেখেছি গোপনে নিজেস্ব কল্পনার গভীরে,
তবুও শীতের শিশিরে নীরবে ভিজে যায়
কষ্টময় শ্মশানের ঘুটঘুটে আঁধারে,
ব্যথার সমুদ্র পাড়ি দিতে দিতে অষ্টপ্রহর ক্লান্ত হই নিষ্ফল সাঁতারে।
ঘনকুয়াশার পোশাকে শীতের মত ভালোবাসা ধোঁয়াশায় রয়ে যায়,
একটুকরো আগুনতাপে মধ্যরাতে ভেজা ভালোবাসাকে পুড়ায়
পোড়া ছাইভস্ম ছড়িয়ে দেই দুঃখের কালো অন্ধকারের সীমায়।
বাস্তহারা বস্তিবাসির মত কনকনে শীতে আমি উত্তাপ চাই, একমুঠো উত্তাপ…
ইচ্ছে করে, রাতের ভাগাড়ে দ্রোহের আগুনতাপে সুখস্বপ্ন পুড়ায়,
মৃত্যুর মিছিলে মিছিলে , কষ্টের তল্লাটে বাজুক সাঁনাই।
অনুভূতির ডানায় ভেসে যাক ইচ্ছেরা
আকাশের বুক ফুঁড়ে নীল ছুঁয়ে আসুক
একাকীত্বের মূর্ছনায় বাজুক বিরহের তানপুরা।
ব্যথার স্রোতে বেহুলার ভেলায় ভেসে যাক অজানা দেশে
আশাবরী আলাপনে তন্ময় হয়ে ডুবে যাক প্রহরে প্রহরে অন্ধকারের মুখোমুখি বসে।


আমাদের বিবেকানন্দ
অরিন্দম চট্টোপাধ্যায়

উৎসব মুখর জেন্দুরের বাড়ি, প্রশস্ত উঠোন
দিন গড়িয়ে পড়ন্ত বিকেল
চারিদিকে গাছ,পাখিদের সন্ধ্যাবেলার আড্ডা
পিতামহ ও আমি মাঝখানে বাবা
কথায় কথায় এনে দাঁড় করালেন
রামকৃষ্ণের উত্তরসূরী ও আমাদের বিবেকানন্দ
উচ্চারিত হতে থাকল ঊনচল্লিশ বছরের বিষ্মিত জীবনের গল্প
চরাচর জুড়ে ছড়িয়ে যেতে থাকল চিত্রায়িত প্রতিবিম্ব
শিমুলিয়া বাড়ির চৌকাঠ থেকে পরিব্রজনায়
বিশ্বআকাশ
যুক্তিবাদী মন থেকে আধ্যাত্মবাদ,
ঈশ্বর অস্তিত্ব থেকে দয়ালু মুক্তি সাধক
পাশ্চাত্যকে চেনালেন প্রাচ্য বেদান্তে
বিশ্ব ভ্রাতৃত্ব বোধ, শান্তি, জাতীয়তাবাদ
মানবতাবাদী জীবন দর্শন, ভেদাভেদহীন সমাজ…
এমন সময় হ্যারিকেন আলো উজ্জ্বল করে গেলেন আমার পিতামহী,আলোর সামনে আমরা
কয়েকটা পোকা উড়ছে, গল্প গড়াচ্ছে…
রাত্রি গভীর থেকে আর ও গভীরে….
উজ্জ্বল শিখার মতন দৃষ্টি, আলোকিত দেশ, উপত্যকা
তার চারপাশ জুড়ে অভাবী জলধারা
.তবুও কঠোর পরিশ্রমে এক নতুন ভারতের স্বপ্ন…
রাত জাগা পাখি উড়ছে, অন্ধকার ক্রমশ হীন
মেঘের ভেতর থেকে হেঁটে যাচ্ছেন
হাতে তার কমণ্ডলু, লাঠি, ঘাড় ঘুড়িয়ে দেখছেন
তাঁর ভারতবর্ষকে আর উচ্চারণ এ আসছে
‘ওঠো, জাগো, থেমো না,
যতক্ষণ না লক্ষে পৌঁচোচ্ছ’……

তিনি আমাদের বিবেকানন্দ, আমাদের বিবেকানন্দ

@ অরিন্দম চট্টোপাধ্যায়, বেহালা, কলকাতা ৭০০০৬০, বেহালা,মো ৯৪৩৩১৩৪৭৬১, হো ৭৫০১৭৭৮২৯১

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com