Breaking News
Home / Breaking News / কচুয়ায় খিলা গ্রামের শহিদ উল্লাহ পাটওয়ারী গংদেরকে মারধর করার অভিযোগে ২টি মামলা দায়ের

কচুয়ায় খিলা গ্রামের শহিদ উল্লাহ পাটওয়ারী গংদেরকে মারধর করার অভিযোগে ২টি মামলা দায়ের

মফিজুল ইসলাম বাবুল,কচুয়াঃ
কচুয়া উপজেলার গোহট উত্তর ইউনিয়নের খিলা গ্রামের পাটওয়ারী বাড়ির শহিদ উল্লাহ পাটওয়ারী (৬৫) কে মারধরের অভিযোগে কচুয়া থানায় মামলা রুজু করা হয়েছে। শনিবার (২৮মে) সরজমিনে গেলে শহিদ উল্লাহ পাটওয়ারী জানান, সম্পত্তিগত বিষয়ে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গত শনিবার (২২মে) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে নতুন বাড়ির পাশে নিজ জমিতে গরুকে ঘাস খাওয়ানো অবস্থায় একই বাড়ির তোরাব আলির ছেলে জহির পাটওয়ারী গং মাঠে এসে অতর্কিত হামলা চালিয়ে শরিরের বিভিন্ন স্থানে লাঠি-চটা এবং দেশীয় অস্র-স্বস্র দিয়ে রক্তাক্ত ও ফুলা জখম করে। পরে লোকজন শহিদ উল্লাহকে উদ্ধার করে প্রথমে কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হলে ১দিন ভর্তি থাকার পর কর্তব্যরত ডাক্তার অবস্থার অবনতি দেখে তাকে চাঁদপুর সদর হাসপাতালে প্রেরণ করে। সদর হাসপাতালে ৩দিন চিকিৎসা শেষে আহত শহিদ পাটওয়ারী বাড়িতে এসে ডাক্তারের পরামর্শ ক্রমে ঔষুধ সেবন করে যাচ্ছে । এ ঘটনায় শহিদ উল্লাহ”র স্ত্রী দেলোয়ারা বেগম (৫০) বাদী হয়ে জহিরকে প্রদান বিবাদী করে ৯জনের বিরুদ্ধে কচুয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ মামলা রুজু করে। যাহার নং ২০ তারিখ ২৩/০৫/২০২১। এদিকে একই দিন সকাল ১১টায় শহিদ গংদের পুনার বাড়িতে জহির গং গিয়ে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে হাবিব উল্লাহ”র বসতে হামলা চালিয়ে তার স্ত্রী শাহানারা বেগম (৪৫) কে মারধর করে। বর্তমানে গুরুতর আহত অবস্থায় শাহানারা বেগম চাঁদপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে। এ ঘটনায়ও জহির গংদের ১০জনকে বিবাদী করে সিনিয়র জুডিশিয়াল মেজিষ্ট্রেট কচুয়া চাঁদপুর আদালতে মামলা দায়ের করে। যাহার সি,আর মামলা নং- ২১২/২০২১। শহিদ উল্লাহ জানান,জহির গং তার ভাইয়ের ছেলে ও আত্মীয় স্বজন। পিতা বেঁচে থাকা অবস্থায় তারা বিভিন্ন ষড়যন্ত্র করে রহিমানগর বাজারে ৩টি দোকান ভিটাসহ বেশ কিছু জমিজমা হাতিয়ে নিয়ে ভোগ দখল করে আসছে। এ নিয়ে মাঝে মধ্যে প্রতিবাদ করলে জহির গং শহিদের বসত বাড়ি ঘরে হামলা চালিয়ে লুটতরাজসহ তাকে দফায় দফায় মারধর করে আসছে। অতিতে এসব ঘটনা থানায় অভিযোগ করলে পুলিশের উপস্থিতিতে এলাকার চেয়ারম্যান, মেম্বার ও গন্যমান্যদের নিয়ে সালিশ বৈঠক বসলে জহির গং দোষী সাব্যস্ত হয় এবং জরিমানাসহ ভবিষ্যতে এসব ঘটনা আর করবেনা মর্মে ৩”শ টাকা মূল্যের স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করে। কিন্তু এর পরেও তারা একের পর এক হামলা, মারধর, নির্যাতন করেই যাচ্ছে বলে দাবী করছে শহিদ উল্লাহ পাটওয়ারী গং।
বিবাদী জহির গং জানান, গত বছরের ১৮ মে শহিদ উল্লাহ”র কাছ থেকে আমরা ৬ শতক সম্পত্তি ৭ লক্ষ টাকা মূল্য সাব্যস্ত ক্রমে ৫ লক্ষ টাকা পরিষদের মধ্যে বায়না পত্র সম্পাদিত করি। পরে আমরা শহিদ উল্লাহকে বাকী ২ লক্ষ টাকা নিয়ে সম্পত্তি রেজিষ্ট্রি করে দেয়ার জন্য বললে সে বিভিন্ন তালবাহানা শুরু করে এবং এ নিয়ে আদালতে মামলা দায়ের করা হয় । যাহার নং-১২৬/২১। জহির আরো জানান,গত ২০/০৫/২০২১ ইং তারিখে শহিদ উল্লাহ গং আমাদের বসত বাড়ি ঘরে হামলা চালিয়ে লুটতরাজসহ ছোট ভাইয়ের স্ত্রী ও তার স্ত্রীর বড় বোন লাভলি বেগমকে এলোপাতাড়ি মারধর করে। এ নিয়ে আদালতে মামলা করা হয়। যাহার নং-২১৫/২১। এ ঘটনাকে মিথ্যা প্রবাহিত করার জন্য এবং সম্পত্তির বায়নার ৫ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ এর উদ্দেশ্যে তারা নতুন করে ২টি হয়রানি মূলক মামলা দায়ের করেছে। তাদের এসব মামলায় আমরা কেউ জড়িত নয় বলে দাবী করে। পূর্বেও শহিদ গং আমাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন হয়রানী মূলক অভিযোগ করে বহু ক্ষতিসাধিত করেছে। এছাড়াও জহির জানান, আমরা কোনো সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে জড়িত নয়, দীর্ঘদিন থেকে স্থানীয় রহিমানগর বাজারে সাধারন ব্যবসা করে জীবিকা নির্বাহ করছি। অথচ শহিদ গংদের প্রবাসী ছেলে আনিছুর রহমান নামে তার ফেসবুক আইডি থেকে আমাদের ছবিসহ সন্ত্রাসী আক্ষায়িত করে পোষ্ট দিয়ে মানসম্মান ক্ষুণ্য করেছে। এ ব্যাপারে আইসিটি আইনে মামলার প্রস্তুতি নেবে বলেও জহির গং জানান।প্রবাস থেকে শহিদ উল্লার পুত্র আনিছুর রহমান এ প্রতিনিদিকে ইন্টারনেটে এক বার্তায় জানান,আমি বাড়ির জন্য সার্বক্ষণিক দুশ্চিন্তায় থাকি। কেনোনা আমার জেঠাতো ভাই জহির গং খুবই বেপোরোয়া ও সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক, তারা প্রতিনিয়ত আমার বাবা, মা, বোনদের এবং পুরান বাড়ির চাচা হাবিব উল্লা ও চাচী শাহানারা বেগমকেসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যদেরকে মারধর করে আসছে। আমরা তাদের এসব নির্যাতন থেকে বাঁচতে চাই।
আহত শহিদ পাটওয়ারী গং ও তাদের পরিবারের সদস্যরা জীবনের নিরাপত্তা চেয়েছেন এবং আদালতে দায়ের করা মামলায় ন্যায় বিচার পাওয়ার আকুতি জানান।

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com