Home / Breaking News / ফরিদগঞ্জে আবারও দুর্ধর্ষ চুরি ॥ অপরাধীচক্র সক্রিয়

ফরিদগঞ্জে আবারও দুর্ধর্ষ চুরি ॥ অপরাধীচক্র সক্রিয়

আবু হেনা মোস্তফা কামাল: ফরিদগঞ্জে চলছে সিরিজ চুরি। এক ব্যবসায়ীর পাকা বসত বাড়িতে দুর্ধর্ষ চুরি সংঘটিত হয়েছে। চোরের দল প্রায় তিন ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার ও নগদ অন্তত ২৫ হাজার টাকা নিয়ে গেছে বলে বাড়ির মালিক অভিযোগ করেছেন। পুীলশ রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। উপজেলার পূর্ব বড়ালী গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে শনিবার ইফতারের পর। অপর ঘটনায়, নিজ বড়ির সামন থেকে উপজেলা পরিষদের সিএ’র মোটর সাইকেল চুরি হয়েছে। এর অন্তত তিনদিন পূর্বে ফরিদগঞ্জ বাজারে তিনটি দোকানে দুর্ধর্ষ চুরি হয়েছে। লোকজন অতিষ্ঠ ও নিরাপত্তা হীনতায় ভূগছেন বলে দাবী করেছেন।

বাড়ির মালিক ছফিউল্লা সফিক (৫২) এর স্ত্রী কোহিনূর বেগম (৪৫) জানান, তার দুই ছেলে। লেখা পড়ার সুবাদে তারা চাঁদপুর ও ঢাকা থাকেন। বিবাহিত ও অবিবাহিত দুই কন্যা ও দুই নাতি নাতনি তার সঙ্গে ঘরে ছিলেন। তার স্বামী ব্যবসার সুবাদে ফরিদগঞ্জ বাজারে পিপাসা রেস্টুরেন্টে ছিলেন। বিকাল প্রায় আট ঘটিকায় কোহিনূর বেগম
দুই কন্যা ও নাতি নাতনীকে সঙ্গে নিয়ে পার্শ্ববর্তী গাব্দেরগাঁও গ্রামের বাপের বাড়িতে যান। সেখানে তারা মিলাদে অংশ গ্রহণ করেন।

কোহিনূর বেগম বলেন, রাত আনুমানিক আটটায় তারা ঘরে ফিরেন। সাড়ে আটটা নাগাদ তিনি তার শয়ন কক্ষে ঢুকে দেখেন, শোকেস এলোমেলো, পাল্লা খোলা, ড্রয়ার, কাপড় চোপড়সহ বিভিন্ন আসবাবপত্র পড়ে আছে বিছানার ওপর। পলকেই দেখতে পান কক্ষের পূর্ব দিকের জানালার গ্রিল ভাঙ্গা ও পাল্লা খোলা। এ সময় অপর কক্ষে থাকা তার কন্যাদের ডেকে আনেন ও স্বামীকে খবর দেন।
তারা দাবী করেছেন, চোরের দল তাদের ঘর থেকে তিনভরি ওজনের স্বর্ণালংকার ও নগদ প্রায় ২৫ হাজার টাকা নিয়ে গেছে।

এদিকে, খবর পেয়ে ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইন-চার্জ
আব্দুর রকিব এর নির্দেশে এসআই নাছির উদ্দিন রাত আনুমানিক ১০ ঘটিকায় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন, গৃহিনী ও গৃহকর্তার অভিযোগ শুনেন। তিনি মিডিয়া কর্মীকে জানিয়েছেন ব্যপারটি খতিয়ে দেখা ও আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে, পৌর এলাকার ভাটিরগাঁও গ্রামের নিজ বাড়ির সামন থেকে, শনিবার বিকাল চার ঘটিকায় মোটর সাইকেল চুরি হয়ে গেছে। মোটর সাইকেল মালিক এর নাম মোঃ মামুন। তিনি ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অফিসে সিএ পদে কর্মরত আছেন। বাড়ির সামনে ডিসকভার ১৫০ সিসি মোটর সাইকেল (নং চাঁদপুর ল-১১১৭৮০, রং কালো) রেখে ভিতরে প্রয়োজনীয় কাজ সারছিলেন। বিকাল চারটায় বাড়ির সামনে যান এবং মোটর সাইকেলটি খুঁজে পাচ্ছিলেন না। এক পর্যায়ে চতুর্দিকে খোঁজাখুঁজি করেও মোটর সাইকেলের সন্ধান আর পেলেন না। এ নিয়ে তিনি থানায় কোনো লিখিত অভিযোগ করেননি। তবে, মোটর সাইকেল চুরির ঘটনাটি শুনেছেন বলে ওসি জানিয়েছেন।

এ ব্যপারে ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রকিব বলেন, ইদানিং চুরির ঘটনা একটু বেড়েছে। আমরা কয়েকটি ঘটনায় মালামালসহ অপরাধী ধরেছি। তিনি পরামর্শ দিয়ে বলেন, নিজেরাও একটু সচেতন হতে হবে। ঘর একদম খালি না রেখে কাউকে থাকতে হবে। অপরাধী ধরার ব্যপারে আমরা তৎপর রয়েছি। আমাদের প্রতি সকলের সহযোগিতা কামনা করছি।

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com