Breaking News
Home / Uncategorized / ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে এক বৃদ্ধকে পিটিয়ে আহত

ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে এক বৃদ্ধকে পিটিয়ে আহত

শাহরাস্তি প্রতিনিধিঃ
চাঁদপুরের শাহরাস্তিতে ইরি ধান ক্ষেতে ক্রিকেট খেলায় বাধা দেয়ার ঘটনায় বর্ষিয়ান এক বৃদ্ধকে পিটিয়ে আহত করার ঘটনা ঘটেছে। এঘটনায় আহত ব্যক্তি বাদী হয়ে ঘটনাকারীদের বিরুদ্ধে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

ঘটনাটি গত ২৭ এপ্রিল শনিবার বিকেল ৪ টায় উপজেলার টামটা উত্তর ইউনিয়নের হোসেনপুর গ্রামে ঘটে। জানা যায়, ওই গ্রামের দক্ষিণ পাড়ার নুরু ডিলার বাড়ির মৃত হাজী সোনা মিয়া প্রধানীয়ার ছেলে হাজী নুরুল ইসলাম ডিলারের বসত ঘরের দক্ষিণে পাকা ইরি ধানের জমিতে শাকিল (২০) এর নেতৃত্বে ক্রিকেট খেলতে আসে একদল উড়তি বয়সী তরুন। এসময় নুরুল ইসলামের স্ত্রী হাসিনা বেগম তাদেরকে এখানে না খেলাতে নিষেধ করেন। নিষেধ করা সত্বেও ঘটনায় একই গ্রামের বিনা গাজী বাড়ির মৃত আবদুল করিমের পুত্র আয়াত আলী ভূইয়া (৪২) ক্রিকেট খেলার স্ট্যাম্প দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে হাজী নুরুল ইসলাম (৭৫) ডিলারকে।

এব্যাপারে হাসিনা বেগম বলেন, ওই দিন বিকেলে বাড়ির উঠোনে কাজ করছিলাম। এ সময় একই এলাকার শাকিল (২০) এর নেতৃত্বে একদল উড়তি বয়সী তরুন আমাদের বাড়ির দক্ষিণে পাকা ধানের জমির মাঝখানে ক্রিকেট খেলতে আসে। আমি তাদের খেলতে নিষেধ করি। কিন্তু তারা আমার নিষেধ না শুনে উল্টো গালমন্দ করে। তখন আমি বিষয়টি আমার স্বামী নুরুল ইসলাম ডিলারকে জানাই। তিনিও তাদের এখানে না খেলার ব্যাপারে নিষেধ করেন।

ডিলার নুরুল ইসলাম বলেন, আমি ঘটনাস্থলে আসলে ছেলেরা উপহাসমূলক কথা বলতে থাকে। তবুও আমি তাদেরকে বলি তোমরা এখানে আজ খেলো না দু’একদিন পর খেলো। এই সুযোগে আমার ধানগুলো কেটে নেই। তারা আমার কথা শুনেনি। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে খেলোয়ারদের নেতৃত্ব দেয়া শাকিলের (২০) বাবা আয়াত আলী এসে আমাকে ক্রিকেট খেলার স্ট্যাম্প দিয়ে বেদম মারধর করে। এতে আমি গুরুতর আহত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ি। তিনি আরও বলেন, ছেলেরা যেখানে খেলতে এসেছিলো সেখানসহ আশ-পাশের সব জায়গাগুলো আমার। সেই জমিগুলোতে পাকা ধান রয়েছে। ২/১ দিনের মধ্যে কাটা হবে। আমার জমির পাকা ধানে মই না চড়াতে বললেই ঘটে বিপত্তি। কিছু না জেনেই শাকিলের বাবা এমন ঘটনাটি ঘটিয়েছে। অথচ তাদের সাথে আমার কোনো শত্রুতা নেই। তারা আমার নিজ এলাকার লোক। আমার উপর এমন পাষবিক নির্যাতনের প্রতিকার পেতে আমি আইনের আশ্রয় নিয়েছি।

এঘটনা সম্পর্কে জানতে গেলে আয়াত আলী বাড়ি না থাকায় তার কন্যা জান্নতুল ফেরদৌস বলেন, ঘটনার দিন বিকেলে শাকিলসহ এলাকার ছেলেরা মাঠে খেলতে যায়। সেখানে কি হয়েছে তা আমার জানা নেই। খেলার মাঠ থেকে ছোট ভাই দৌঁড়ে এসে আমার বাবাকে বিষয়টি জানালে তিনি সেখানে যান । শুনেছি আমার বাবা সেখানে গিয়ে দেখতে পান ডিলার সাহেব আমার ভাই শাকিলের গলায় দা ধরে আছেন। তখন আমার বাবা মাথা ঠিক রাখতে না পেরে ডিলারকে ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দেন। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, আমার ভাই শাকিলের গলায় কাটা দাগ ও বিভিন্ন স্থানে ক্ষতের চিহৃ রয়েছে। এব্যাপারে শাকিল বলে, আমি রাগে ক্ষোভে খেলার স্ট্যাম্প দিয়ে ডিলার সাহেবকে একটি আঘাত করি। যা তার অপরাধ হয়েছে বলে মনে করে সে। তবুও আইনের দুয়ারে কড়া নাড়ছে। ডিলার সাহের বর্ষিয়ান মানুষ। ছেলেদের এমন কাজটি করা ঠিক হয়নি। পাশাপাশি আয়াত আলী রেগে যে কাজটি করেছেন তা নেক্কারজনক। উড়তি বয়সী ছেলেদের প্রশ্রয় দিয়েছেন তিনি। যা আগামীতে এসমাজে জন্য কাল হয়ে দাঁড়াবে বলে তারা আশংকা করছেন। এমন ঘটনার রশি এখনই শক্ত হাতে টেনে ধরা উচিত।

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com