Breaking News
Home / Breaking News / দুই বাংলার বৃহত্তম নেটওয়ার্ক দৈনিক শব্দনগরের আজকের সেরা ছয় সাহিত্য

দুই বাংলার বৃহত্তম নেটওয়ার্ক দৈনিক শব্দনগরের আজকের সেরা ছয় সাহিত্য

ভালো থাকিস ‘সেরি ”

গল্প সত্যি

শিবাজী বসু
২১/6/ ২২

সকাল থেকে একটানা বৃষ্টি ۔۔۔আকাশের মেঘ কালো ۔۔۔আমাদের ও মনটা কষ্টে ভারী ۔
বারো বছর আগে ছেলের বাইনাতে এনেছিলাম ঘরে ۔۔খুব ছোট ۔۔হালকা গোল্ডেন
রঙের ۔۔
. . . . বাড়ির একজন হয়ে উঠলো খুব অল্প সময়ে ۔۔ছেলেরা স্কুল থেকে ফিরলে
কত যে আদর করতো ۔۔গায়ে উঠে পড়তো ۔۔
জুতো মুখে নিয়ে ছাতে পালাতো ۔۔

۔۔۔۔۔۔۔۔۔۔۔۔۔۔۔۔۔۔আমি বেড়োতে গেলে সারা বাড়ি
ডেকে ডেকে অস্থির করতো ۔۔ বেড়োতে
দেবে না আমায় ۔۔সঙ্গে যাবে আমার ۔
কত আদর যে পেয়েছি ۔۔বলতে গেলে
চোখের জল অজান্তে বেরিয়ে আসবে ۔

ওর খাওয়া দাওয়া র ভার ছিল ছেলের আর তার মায়ের উপর ۔۔খাবার পছন্দ না হলে চুপ করে থাকতো ۔۔ অনেক কষ্ট করে খাওয়া তে হতো মাঝে মধ্যে ۔۔

ছেলেরা দুস্টুমি করলে ۔গায়ে হাত তুলতে গেলে আমার উপর ঝাপিয়ে পড়তো ۔۔
. . . . ওকে নিয়ে যে কত গল্প আছে ۔۔

ইদানিং বয়সের ভারে একটু কাবু হয়ে গিয়ে ছিল ۔۔সেরি ۔খেত না ঠিক করে ۔۔ডাক্তার বাবু ওষুধ দিয়েছিলেন ۔۔খেলেই বমি করে দিতো ۔

সকাল বেলা রোজ আমার বিছানায় এসে শুয়ে পড়ে۔۔۔ শুরু হতো আদর ۔۔

আজ এলোনা ۔۔

আমাদের ছেড়ে ও চলে গেলো ۔۔۔চুপ চাপ ۔

ছেলেরা ঘুমাচ্ছে ۔۔۔তারা তারি ۔ওর বিছানা ۔
খাবার থালাটা আর ওকে নিয়ে গাড়িতে বেড়িয়ে গেলাম ۔۔বৃষ্টি হয়েছে ۔۔রাস্তা ঘাট খালি ۔۔বাড়ি থেকে অল্প দূরে একটা বড়ো
দীঘি আছে ۔۔তার পাড়ে যদি রেখে আসতে পারি ۔۔

আমার সাথেই ও এসেছিলো ۔۔
আমি ই ওকে রেখে আসবো ۔۔

শান্তিতে থাক ۔۔কত কষ্ট ۔
কত রাত জেগেছো ۔সেরি
আমরা ঘুমিয়েছি শান্তিতে !!!!!

——————————————-

কেলেঙ্কারি
আজিজুল হক, ২১|০৬|২০২
—————————————–
পাঁচ কিংবা সাত, ছয় কিংবা নয়
নয় -ছয়ের গল্প, বিশেষ বিবেচ্য নয় –
যুগে যুগে সর্বদায় হয়েছে জীবনের জয়।

আটপৌরে জীবনে নপুংশক, বাঝা-বন্ধার
নেই খোব- নেই ভয়, জীবন যুদ্ধে লড়ছে সবাই
সতত হয়েছে- জীবনের জয়।

সাত সিন্ধু জল, আঁখি ছল্ ছল্
জীবন নদী জোয়ারে ভাসে সুর ওঠে কল্ কল্
তবু, লালসা প্রশোমিত হয়েছে কি?

ভাসছে বান ভাসি ভাসছে বাস্তহারা ক্যাম্প
আমানিশায় অট্টহাসি হাসছে কৌশলি ভ্যাম্প
তাই আজ, নির্বিকার জনপদ – -!!

পদ্মা মেঘনা যমুনা ও একদিন শুকাবে -লালগ্রহে
ব্রত বিশ্বাস আচমকাই লুকাবে বিকৃত মানসপট
কি, বিশ্বাস হয় না?

সেই আদম, সেই আদিমতা মাঝ খানে কতকথা
কামিনির কামনা নিভৃতে জন্মান্তর-অদ্যাবধি
সভ্যতার টাট্টুঘোড়া ছুটছে -কালাম্তর।

তাবড় তাবড় কেলেঙ্কারি, ফুটো খুটো গোয়াল
হুড়কোর গল্প লজ্জার -অসুত স্বর্গ বিড়ম্বনা
অনাচার ব্যাবিচার এ জীবন সংসার – –
বড় লজ্জার!!

——————————————–

বিভাগঃকবিতা
শিরোনাম ঃ ক্ষমা কর
কলমেঃ জেবুন নাহার
তারিখঃ২১/৬/২২

চেয়ে দেখো এই বাংলায়
দুর্যোগের ঘনঘটা
কখনও বন্যার ঢল
কখনও আগুনে শেষ হয়ে যাওয়া ছাই ভষ্ম
কখনও রাস্তার ভয়াবহ দুর্ঘটনার করুণ দৃশ্য।

চেয়ে দেখো সিলেটের বন্যা কবলিত স্রোতের নৃশংসতা,
উন্মাদ, সর্বনাশী, সর্বগ্রাসী বাণ ফিরেছে আবার
গ্রাস করেছে মানুষ,পশু সব
গ্রাস করেছে ঘর বাড়ি, ফল ফসল, জমি ক্ষেত খামার
এমন কী শেষ আশ্রয়টুকুও।
সব হারিয়ে মানুষ এখন সর্বহারা, নিরুপায় বিহ্বল।

আল্লাহর রহমত ছাড়া এ ভীষণ বালার উত্তরণ কে ঘটাবে আর?
সৃষ্টির আদি থেকে আজ অবধি
মানুষ ভুল করেছে বার বার
যুগে যুগে এই মানুষই প্রায়শ্চিত্ত করেছে যে তার।

মানুষ জেগে ওঠো, হুশ করো
সময় এসেছে জীবন পরীক্ষার
আপনাকে শুধরাবার,
প্রয়োজন কলুষমুক্ত মানবিকতার।

ক্ষমা করো ক্ষমাশীল,
ক্ষমা করো পরাক্রমশালী
দুর্যোগ নয় রহমতের বারিবর্ষণ কর
বিপদমুক্ত কর অসহায় মানবেরে,
মানুষের পাশে এসে দাঁড়াক মানুষ
সেই শক্তি দাও, সাহস দাও তারে।

রচনাকালঃ ২০/৬/২২

——————————————–
মানুষ
মিতা পোদ্দার
তারিখঃ২১/০৬/২০২১খ্রিঃ

মানুষ চেনা বড্ড কষ্ট
সুন্দর পৃথিবীতে,
ভালো মন্দ খুঁজে পাই
দুষ্ট, মিষ্ট কথাতে।

মুখে মধু অন্তরে বিষ
এমন মানুষ ও আছে
পাহাড় সমান মিথ্যের ঝুড়ি
পাবেন এদের কাছে।

স্বার্থের কাছে ষোল আনা
এরাই নাকি মানুষ,
সাত পাঁচ তের দিয়ে
ঢাকে নিজের দোষ।

এখনো তাই অচেনা লাগে
এসব মানুষেরে,
মুখোশধারী এদের তবে
চিনব কেমন করে।

——————————————–

“শেষ ট্রেন চলে গেছে ”
প্রদীপ আচার্য্য

এ লাইনে শেষ ট্রেন
চলে গেছে কাল ,
এই পথে কোনদিন
আসবে না আর !
আজ আর কোলাহল নেই ,
একজন যাত্রীও আসেনিত ভুলে !
দোকানগুলোর ঝাঁপ ,
একটারও খোলা নেই আজ !
স্টেশনটা আজ ঠিক শ্মশানের মত ।
খুব কাছে আমাদের বাড়ি ,
আজন্ম স্টেশনের সাথে পরিচয় !
স্টেশন মাস্টার …গাঙ্গুলীদা ,
অমায়িক ব্যবহার তার ।
এ ছাড়াও আরও ছিল ,
সুখদেও ,সুলতান ,বিকাশ , রতন
মুর্মুরা দুই ভাই , সান্তুনু কোলে !
মেমো দিয়ে জানিয়েছে রেল ,
জয়েন করতে হবে আসানসোলে।
চমকে যায়নি কেউ , খবরটা শুনে ,
কানাঘুঁষো চলছিল বহুদিন ধরে !
নিরাপদ নয় …..
এই রুটে ট্রেন চলা !
জ্বলছে আগুন ধিকি ধিকি করে ,
রেল পথ বরাবর মাটির গভীরে ।
শেষ ট্রেন চলে গেলে …
দাঁড়ালাম এসে , স্টেশন চত্বরে !
শূন্যতায় ছেয়ে আছে সব ।
দু চোখের জল মুছে ,
সকলেই ফিরে গেলো ,
নিজ নিজ ঘরে ।
যে দিনটা চলে যায় ,
সে তো আর ফিরে আসে না !
মনের গভীরে শুধু থাকে ,
নস্টালজিয়া ॥

——————————————-

শিরোনাম :- কায়া ভালোবাসা ছায়া ।
কলমে :- লক্ষ্মী কান্ত দাস ।
২১.০৬.২০২২

তীরে দাঁড়িয়ে , পড়ে আসা বেলায় ,
আমি সাগরের কুলে, বালুকাবেলায়,
আমার লম্বা ছায়া গিয়ে পড়েছে তীরভাঙ্গা ঢেউয়ের মাথায়,
ছায়া ভাঙতে ভাঙতে হারিয়ে যাচ্ছে ফিরে যাওয়া সাগরের জলে আর ফিরবে না বলে ,
এরপর রাত্রি নামবে , হয়তো বা ফিরতে পারে আমার ছায়া ,
আমার কায়াকে ভালোবেসে পুনর্বার,
কিন্তু অন্ধকার আড়াল করবে অতীন্দ্রিয়কে ইন্দ্রিয়এ ফেরার সরনিতে , আমিও এমনি করে আমার বিচ্ছিন্ন স্মরনিকায় একদিন লীন হবো ,
আমার ত্যক্ত ধরণীতে।

——————————————–

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com