Home / Breaking News / কচুয়ার বিধবা নারী শাহরাস্তিতে স্বামীর পৈত্রিক সম্পত্তি নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্রে নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছে

কচুয়ার বিধবা নারী শাহরাস্তিতে স্বামীর পৈত্রিক সম্পত্তি নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্রে নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছে

মফিজুল ইসলাম বাবুল,কচুয়াঃ
কচুয়া উপজেলার গোহট উত্তর ইউনিয়নের খিলা গ্রামের মৃত ওয়াদুদ পাটওয়ারীর বিধবা মেয়ে শাহরাস্তি উপজেলার আয়নাতলী গ্রামের মিজি বাড়ির মৃত ইসমাইল হোসেনের স্ত্রী জাহানারা বেগম (৩০) স্বামীর পৈত্রিক সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করার পায়তারায় লিপ্ত তারই দেবর সফিকুল ইসলামসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের গভীর ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছে এ বিধবা নারী ও তার ১২ বছরের পুত্র মাহমুদুল হাসান সাকিব এবং ৪ বছরের কন্যা রাবেয়া বসরি মহুয়া। সরেজমিন রিপোর্ট বিধবা জাহানারা বেগম ও এলাকার লোকজনের সুত্রে বিভিন্ন মামলা-মোকদ্দমার অভিযোগে জানা যায়, দীর্ঘদিন থেকে স্বামীর পৈত্রিক সম্পত্তি নিয়ে বিরোধে জাহানারা বেগম প্রথমত স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদে সফিকুল গংদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করলে প্রতিপক্ষরা হাজির না হলে চেয়ারম্যান অপারগতা প্রকাশের পর শাহরাস্তি থানায় জি,আর ১৯/২০২১ মামলা রুজু হয়। মামলার বিবাদী সফিকুল গং আদালত থেকে জামিনে এসে বাদীকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজসহ বিভিন্ন ভয়ভীতির হুমকি-দুমকি দিলে বিষয়টি শাহরাস্তি থানা পুলিশকে অবগত করার জন্য জাহানারা বেগম বাড়ি থেকে রওয়ানা দিয়ে গত ২৫ মার্চ ২০২১ ইং তারিখের সকাল অনুমান সাড়ে ৯ টার দিকে স্থানীয় আয়নাতলী বাজারে আসে। এসময় দেবর সফিকুল বিধবা বড় ভাইয়ের স্ত্রীকে দেখে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করলে তাকে পাদুকা দিয়ে মারধর করতে জাহানারা উত্তপ্ত হয়। এতে সফিকুল আরো ক্ষীপ্ত হয়ে জাহানারাকে এলোপাতাড়ী কিল ঘুষি ও চুলের মুঠি ধরে তলপেটে লাথি মেরে আহত করে। স্থানীয় লোকজনের হস্তক্ষেপে ঘটনাটি শান্ত হলে জাহানারা বেগম শাহরাস্তি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে চিকিৎসা নিয়ে থানায় গিয়ে অভিযোগ দায়ের করে। এদিকে অভিযোগ দায়েরে থানায় অবস্থানরত বিধবার কাছে খবর আসে সফিকুল গং ওই ঘটনার পর পরই বাড়িতে গিয়ে তার বসত ঘর, দরজা ভাংচুর, লুটতরাজসহ বিভিন্ন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটায়। এ ব্যাপারেও আরেকটি পৃথক অভিযোগ দায়ের করে বিধবা। অভিযোগ দুইটি তদন্তের জন্য অভিজ্ঞ অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল মান্নান এসআই মহিনউদ্দিনকে দিলে তিনি প্রথমত ঘটনার অভিযোগটি নন এফ,আই, আর মামলা রুজু করে। যাহার নং ৫১ তারিখ ০৯/০৪/২০২১। এসআই মহিনউদ্দিন জানান, আমি প্রথমত ঘটনার অভিযোগ পেয়ে নন এফআই আর মামলার চার্সিট আদালতে দাখিল করেছি এবং দ্বিতীয় ঘটনার বাড়িতে হামলার অভিযোগ পাইনি। উল্লেখ্য যে, ওই দিন আয়নাতলী বাজারের ঘটনা নিয়ে সফিকুল গংও বাদী হয়ে বিধবা জাহানারা বেগমসহ ২ জনকে বিবাদী করে চাঁদপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করলে তা এফআই আর অর্ন্তভুক্ত করে তদন্ত সাপেক্ষে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য শাহরাস্তি থানাকে নির্দেশ প্রদান করেন আদালত। যাহার মামলা নং-৭ তারিখ ১০/০৪/২০২১ ইং। এ মামলাটিও তদন্তের ভার পেয়েছেন, এসআই মহিনউদ্দিন। এ মামলার প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি সরজমিনে গিয়ে তদন্ত করেছি এবং আমার তদন্তে যা সত্য তাই প্রতিবেদনে উল্লেখ করে আদালতে দাখিল করবো। এসব মামলা-মোকদ্দমা পরিচালনা করতে গিয়ে অর্থহীন হয়ে দুই ছেলে মেয়েকে নিয়ে খুব কষ্টে দিন যাপনসহ প্রতিপক্ষদের গভীর ষড়যন্ত্রের স্বীকার হয়ে নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছে বলে এ বিধবা নারী জাহানারা বেগম জানান। সফিকুল ইসলাম গংদের বক্তব্য নেয়ার জন্য চেষ্টা করা হলে তাদেরকে পাওয়া যায়নি।

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com