Breaking News
Home / Breaking News / দুই বাংলার বৃহত্তম নেটওয়ার্ক দৈনিক শব্দনগরের আজকের সেরা ছয় সাহিত্য

দুই বাংলার বৃহত্তম নেটওয়ার্ক দৈনিক শব্দনগরের আজকের সেরা ছয় সাহিত্য

নিধি,
যাদের হাতেই দিলেন লাটাই
চলেন ওদের কইলজা ফাটাই
ওরা,
যেমন খুশি তেমন নাচায়
ইচ্ছে হলেই চাবুক চালায়!

আমি,
হানিফ মরার গুজব ছড়াই
মিথিলা সৃজিত আজাদ গিলাই
মালিশে মদদে সুবিধা কুড়াই
বালিশে ধর্ম্ম কর্ম্ম পুড়াই!

তুমি,
খাঁচায় রবে বাঁচার আশে
মুখের ওপর টোপর গুঁজে
রূপকথার ঐ গল্প ফেঁদে
সেলাম নেবে মাথা ঠুকে,
_______________ রশিদ ভাই
ছাব্বিশ পাঁচ বাইশ

——————————————–

মন অভিমান
– রশিদ আহমেদ তালুকদার

এই আমার সঙ্গে কে, কি করেছে
আমার সবই মনে আছে,
মনে আছে ঢেড় কে আমাকে
হিংসে মনে তুচ্ছভেবে তুই বলেছে।

কে কেটেছে মিথ্যে আড়ি
সুযোগ পেয়ে মেরেছে ঝাড়ি
মনে আছে সব শীত ও তাপে
কেটেছে কখন দু’মুখো সাপে।

——————————————–

আমাদের জাতীয় কবি
মোঃ আব্দুল হাই
.
জ্যৈষ্ঠ তুমি মধু মাস
পাঁকা ফলের মিষ্টি রস,
আম কাঁঠালের বন বাদাড়ে
পাখিদের কলরব।
.
এগারো জ্যৈষ্ঠ ভারতবর্ষে
চুরুলিয়া বর্ধমানের,
দুখু মিয়া জন্ম নিল
গরীব দুঃখী পরিবারে।
.
অন্ন যোগায় কষ্ট করে
না হয় থাকে অনাহারে,
এমনিভাবে কাটে জীবন
আট বছরে এতিম সাজে।
.
ইমাম হয়ে আজান করে
নামাজ পরে মসজিদ ঘরে,
লেখাপড়া ভালো লাগে না
হয়ে গেল ভবঘুরে।
.
গান লিখে আর গান করে
লেটোর দল ঘুরে ঘুরে,
পাঁচ টাকাতে চাকরি তার
রুটি বেলে দোকান ঘরে।
.
ত্রিশালের জনৈক পুলিশ
ভর্তি করে বিদ্যালয়ে,
মহাযুদ্ধ শুরু হলে
অস্ত্র হাতে যুদ্ধ করে।
.
বিজয়ী বেশে বাড়ি ফিরে
পত্রিকাতে লেখা ধরে,
“ধূমকেতুতে” ধূম পরে যায়
দেশ বিদেশে সুনাম ছড়ে।
.
গান গজলের সুর ভাসে তার
বাঙালীদের মুখে মুখে,
হিন্দু মুসলিম নেই ভেদাভেদ
ভাবেন তিনি সবার সুখে।
.
মুগ্ধ হল দেশবাসী
নজরুলের কথা সবাই ভাবি,
জাতি দিল স্বীকৃতি তার
হলেন তিনি জাতীয় কবি।
.
সোনা বরণ মুখটি যেন
মায়াবী তার বেশ,
যুগল ভুরু ডাগর আঁখি
মাথায় কালো কেশ।
.
বারোই ভাদ্র চলে গেল
পরপারের ডাকে,
দাফন ক্রিয়া সম্পন্ন হল
বিশ্ববিদ্যালয়ের বাঁকে।
.
মসজিদ থেকে আজানের ধ্বনি
শুনতে পাও কি সবই,
ঘুমাও তুমি মহাসুখে
মোদের জাতীয় কবি।

——————————————–

#পাপ….

একা আর জনতার মাঝে প্রতিভার পাপ মেখে
কবি ছুঁয়ে ফেলতে চায় প্রেম,
গোধূলির বিষণ্ণতা মেখে
অস্তমিত সূর্যের মতো
সারা শরীরে জল মেখে টুপ্ করে ডুব মারে কবিতাগুচ্ছ,
অতৃপ্ত কবির অসমাপ্ত কবিতারা
অপেক্ষায় থাকে উত্তরণের।
হঠাৎ এক জোৎস্না-স্রোতে
কবি আর কবিতা ভেসে যায় অজানায়।

✍️তাপস
২৫/০৫/২০২২

——————————————–

বিষয়- কবিতা
শিরোনাম- “শঙ্কটমোচন”
কলমে – প্রতাপ মুখার্জ্জী
তারিখ -ইং 25/05/22
++++++++++++++++++++++

অবশেষে স্বস্তির ধারা নামিল।
অতৃপ্ত প্রেতাত্মার,
পিপাসিত হৃদয়ে
প্রাণ সঞ্চার করিল।

হায় হায় চারিদিক,
কান্নার রোল
প্রাণহীন অবয়ব,
শুধুই গণ্ডগোল।

বামে-ডানে শুভাকাঙ্ক্ষী
ছিল সব যত,
অশ্রু মুছিয়া তারা
হাসে অবিরত।

তুমি ছাড়া গতি নাই
হে প্রভুপাদ,
আমরা তো দাবার ঘুঁটি,
কর বাজিমাত।

মনের মানুষ পাশে থাকলে
ভয় কিবা আর।
মাঝ দরিয়ার দক্ষ মাঝি,
কর পারাপার।

কর্তাহীন সংসার
সব কিছুই যে অসার।
তোমার মনের আঁধার বন্ধু,
দূর হবে এবার।

——————————————-
শিরোনামঃ- আমার বিদ্রোহী কবি
কলমেঃ- বরুণ কুমার দে
তাংঃ- ২৪/০৫/২০২২

আমার তোমার সবার প্রিয়
কাজী নজরুল
বিদ্রোহী তিনি কবিতা লিখে
তিনিই বুলবুল।।

জন্মেছিলেন এ বাংলার
চুরুলিয়া গ্রামে।
ছেলে বেলায় চিনতো সবাই
দুখু মিঞা নামে।।

গরীব ঘরে জন্ম কবির
অভাব নিত্য সঙ্গী।
প্রতিটি লেখায় থাকতো কবির
বিদ্রোহের এক ভঙ্গি।।

গায়ে গতরে খেটে খাওয়া
মানুষ ছিলো সাথী।
ক্ষুরধার লেখনী জাদুতে
জ্বালাতেন বাতি।।

মা মাটির মানুষের প্রতি
ছিলো অগাধ টান।
কলমের কালি তাদের নিয়েও
লিখতেন কবিতা গান।।

রক্তে রাঙালেন স্বাধীনতা
লৌহ কপাট চৌচির।
কলমে তিনি বিদ্রোহী আর
মহান যোদ্ধা বীর।।

জাতি ধর্ম সংকীর্ণতা
ছিলোনা তাঁর কাব্যে।
সাম্যেরই গান বর্ষিত হলো
দুই বাংলার ভাগ্যে।।

একই বৃন্তে ফোটালেন তিনি
হিন্দু মুসলমান।
বৃটিশ শাসক দিলো তাঁকে
বিদ্রোহী সম্মান।।

তাঁর শেকল ছেঁড়া গানে
ভাঙলো পাষাণ বেদি।
ইংরেজদের ঘোর দুর্যোগে
তিনিই পাগল নদী।।

কান্ডারি হয়ে আসুন ফিরে
ধরুন আবার হাল।
আপনার আসন মন মন্দিরে
অনন্ত চিরকাল।।

——————————————–

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com