Breaking News
Home / Breaking News / দুই বাংলার বৃহত্তম নেটওয়ার্ক দৈনিক শব্দনগরের সেরা চার সাহিত্য

দুই বাংলার বৃহত্তম নেটওয়ার্ক দৈনিক শব্দনগরের সেরা চার সাহিত্য

বিশ্ব নারী দিবসের দিনে —–
–কবিতা — এবার তো চোখ খোল
শ্যামল ব্যানার্জী
০৮/০৩/২২

আর কত বোঝাবো তোকে?
কি দিয়ে বোঝাবো, কি ভাবে বোঝাবো তোকে,
কেন,
তোরা মেয়েরা এত মেনে নিস, কেন?
অনেক মানার মতো ভালো কিছু আছে ,
মানার মতো আছে অনেক কিছু
যা তোকে মহীয়সী করে তোলে,
তাকে ছেড়ে,
সব ছেড়ে ছুড়ে বোকার মতো
মানিয়ে নেবার ভুত চেপে বসে ঘাড়ে ,
লাথি ঝ্যাঁটা অপমানের জল
না খেলে বুঝি হয়না তোদের হজম।
সহনশীলতার নামে এক ঢোক দিব্যি খেয়ে,
দিব্য থাকিস তোরা মহান নারীর বেশে।
এবার খান্ত দে।
এবার একটু রুখে দাঁড়া।
দ্যাখনা কি হয় গ্যাস স্টোভ নিভিয়ে দিয়ে।
অরন্ধনে কাটিয়ে দেনা একটা করে আর একটা দিন,
অসহযোগিতার পদক্ষেপে প্রতিবাদ হোক
ঋজু দেহে, ভেঙে পরা নয়।
চারপাশের মানুষ গুলো না হয় একটু বুঝুক
একটা মেয়ে রোজ নামচায়
সারাটাদিন কি করে।
জামা কাপড় গুলো থাকনা প’ড়ে
নোংরা যেমন আছে,,
থাকনা প’ড়ে, ঘরের ঝাড় পোঁছ।
অলক্ষী দর্শিত হলেই তবেই নড়বে টনক,
কি করে বোঝাবো তোকে।
আসলে, তোরা নিজেরাই কি ভেবে,
বানিয়ে ফেলিস নিজেদের.. নরম মাটির মতো একতাল।
আঁচড়ে গেলেও প্রতিবাদ হীন।
আমি তো তোকে বলেছি বারবার সে কথা,
তুই কখনোই নিসনি গভীর ভাবে,
তবু আবারও বলি একবার,
ভেবে দ্যাখ, নারীরই গর্ভজাত.. আইনস্টাইন, নেতাজী সুভাস , আব্দুল কালাম।
তুইতো, গরবে গরবিনী।
তবে এত দৈন্যদশা কেন?
সত্যি বলছি এমন মেয়েদের লাগেনা ভালো একদম আমার ।
এবার জেগে ওঠ, প্রতিবাদী মুখটা দেখি তোর,
একবার আমায় ভালোবেসে, আমাকেই নাহয় আঘাতটা প্রথম করে দ্যাখ।
অন্তত.. এক মেয়ে হয়ে মেয়েদের পাশে থাক।

——————————————–

শিরোনাম-বায়সের মধ্যদুপুর
কলমে- রত্না চৌধুরী
তারিখ – ০৮/০৩/২০২২

মধ্যদুপুর!
বিশ্রাম চায় রমা
কিন্তু ব্যতিক্রম সৌন্দর্যে নয়ন সেঁটে যায়
বাইরের শতাধিক কাক স্নানের পানে।
এইতো সেদিনও ছিল ঘন ঝোপঝাড়, বাঁশবাগান,
ঝি ঝি পোকার অনবরত ডাক,সাপের আনাগোনা,
গরীবের তৃপ্তি মেটানো অনাকাঙ্ক্ষিত বেড়ে উঠা নানা সবজি।

এখন জন আসে জন যায় সবটুকু মাড়িয়ে।
একদিকে প্রবেশ, অন্যদিকে প্রস্থানে আজ পরিবর্তনের
হাওয়া ভাসছে আকাশে বাতাসে।
ছোট বড় অসংখ্য গর্তে জমানো পানিতে
বৃকরা আনন্দ করে মধ্যদুপুরে!
জোড়ায় জোড়ায় বৃকদ্বয় বাঁশের ডগায় বসে
ভাবছে আর দেখছে! আহা কি রূপ!
সম্ববত প্রেমিক বৃক
রাধাকে যেমনটি রেখেছিল নয়নে নয়নে।
তেমনি প্রেমিক বৃকও কৃষ্ণসম।

তাদের ঘরেও অনর্থ ঘটে পথচারীর আনাগোনায়
বৃকের সুখ নিলামে উঠে।
পথিকরা ভাবে কবিতা
অন্যদিকে বৃকেরা চায় জীবন।

——————————————-

“নারী তু‌মি কে ”

কোথায় থে‌কে এ‌লে তু‌মি
কে করল তোমায় সৃ‌ষ্টি ?
মানুষ না‌মের গড়ন নি‌য়ে
কতই না অনাসৃ‌ষ্টি ;
কাদা মা‌টির ঐ তো গড়ন
পুরুষ নারীর ও আ‌ছে ,
তবু তোমায় শুধু আড়া‌লে রাখে
শত নিয়‌মের মা‌ঝে !?

তবু তুম‌ি থা‌কো‌নি অল‌ক্ষে ,
নি‌জে‌কে রাখ‌নি অন্তরা‌লে ?
তরবা‌রি হা‌তে পুরু‌ষের পা‌শে ,
এ‌সে‌ছো মরু‌রি প্রান্ত‌রে !
তু‌মি সাহসী , তু‌মি প্রেরণাময়ী
আবার তু‌মিই মমতাময়ী ;
অস্ত্র হা‌তে ক‌রে‌ছো যুদ্ধ
হ‌য়ে‌ছো গ‌র্বিনী ।

তু‌মি সুভাষিনী , তু‌মি মায়া‌বিনী
তু‌মিই করুণাময়ী ;
তু‌মি চ্ঞ্চলা , তু‌মি চপলা , তু‌মিই সু-হা‌সিনী ।

তু‌মি তেজস্বীনী , তু‌মি রুদ্র , তু‌মি দিপ্ত জ্বালাময়ী !
স্রোত‌স্বিনী জ‌লে ছল ছল তু‌মি
কল কল সুরে রা‌গিনী !

তু‌মি দূর্বার , তু‌মি উচ্ছল ,
কখ‌নোও শৃঙ্খ‌লিত ;
আজ শৃঙ্খল ভে‌ঙ্গে‌ছো ব‌লেই, পৌঁ‌ছে‌ছো
তু‌মি যেথায় সীমানা কা‌ঙ্খিত ?

তু‌মি বিজয়া , তু‌মি নিপুণা ,
তু‌মিই স্বপ্ন চা‌রিণী ;
তু‌মি ঘরনী হ‌য়ে বই‌ছো হেথাই —
তোমা‌রি সু‌খের তরণী ।

ঘর , বার ঐ আকাশ চূড়া
স‌বে‌তেই তু‌মি আ‌ছো ;
ভা‌লোবাসার পরশ দি‌য়ে সব ,
আগ‌লে রে‌খে‌ছো !!

রোকশানা আক্তার
রচনা কাল :০৮.০৩.২০২২

নারী দিবসের ছোট্ট উপহার

——————————————–
#পতিতা_নারী
#নাসরীণ_রীণা
০৮/০৩/২০২২

তোমরা আমার যৌনচারিতা দেখেছো
ক্ষুধা দেখেছো কি?
আমার পেশাবৃত্তির নগ্নতা দেখেছো
আমার পিতা-মাতার কান্না দেখেছো কি?
বাবা আমার হাড়ভাঙা খাটুনিতে
শক্তি হারিয়েছে সে কবেই!
তাকালে কঙ্কালের উপর শুধু
চামড়ার প্রলেপ দেখা যায়।
মাংস সে অনেক আগেই লাপাত্তা।
আর মা’র কথা বলবো?
লোকের বাড়ি কাজ করে করে
কুঁজো হয়ে গেছে।
পাঁচ মেয়ের মুখে অন্ন তোলা,
বস্ত্রে শরীর ঢাকা
এ যখন আর সম্ভব হয় না
বাবা-মা’র তখন নানা দ্বারে যাওয়া
আশা নয় হতাশাই পাওয়া
তা কি তোমরা দেখেছো?
করিম চাচা আমায় কাজ দেবে বলে
ঢাকায় আনে
বেচে দেয় পতিতালয়ে
লিডারের হাতে সম্ভ্রমহানি!
তারপর…….
এসব কি তোমরা দেখেছো?
এই তোমরাই রাতে উল্লাসে ফেটে পড়ো
আমার দেহের নগ্নতায়!
আর দিনে ব্যস্ত থাকো
চরিত্রের নগ্নতা নিয়ে।
যেদিন আমি বিক্রি হই
কতইতো কেঁদেছিলাম
যখন সবকিছু শেষ
আর কি বেরুতে পেরেছি?
এখন আমার পাপের উপার্জনে
আমার মা-বাবা চলে
একটা সুরক্ষিত পবিত্র স্তনে
আমার সন্তানের খিদে মেটে
কী বলবে তোমরা?
আমি পতিতা?


——————————————–

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com