Home / Breaking News / কবি শ্যামল ব্যানার্জীর জীবন্ত কবিতা “এ কেমন নাগরিক আমি”

কবি শ্যামল ব্যানার্জীর জীবন্ত কবিতা “এ কেমন নাগরিক আমি”

এ কেমন নাগরিক আমি
শ্যামল ব্যানার্জী
২৯/১২/২০২১

আমি মরন পণ হাঁটছিলাম অনন্তের পথে,
এক বৃক্ষ দাঁড়ালো এসে..
বললে, ঋণ চুকিয়ে যাও.. সেই ছোটো বেলার ঋণ,
আমার কোলে মাথা রাখার ঋণ …
আমার ছাল ছাড়ানোর ঋণ,
আমাকে কষ্ট দেবার.. আমার ডালের কান ধরে ঝোলার.. আরও কত বলবো কি।
বললেম, আমি ভুলে গেছি সব.. আজ আমার কোনো ছোটোবেলা নেই.. অতীত নেই…. সব বিস্মৃত কালের গর্ভে বা তোমার প্রাচীন কোটোরে দেখো বিলিন হয়ে গেছে।
আমি এখন স্বাধীন এক মুক্ত পুরুষ.. চলেছি অমৃতের সন্ধানে।।
সেই পুকুরটা এসে দাঁড়ালো এবার..
রুগ্ন.. খয়িষ্ণু কেমন যেন খর্বকায়,
বললে, যেওনা এখন…
জল বড় শান্ত হয়ে গেছে তুমি নেই বলে।
আমি এখনও অশান্ত হতে চাই তোমার দুরন্তপনায়,
এলো মাঠ… ধান ক্ষেত.. শ্মশান ঘাট.. পাশে গঙ্গা,
সারি সারি নাড়কোল গাছ আর সাথী যারা সেই হারিয়ে যাওয়া.. দামু.. তিরভোনা.. নারাণ.. দুঃখী.. রাধু.. সবাই.. মিলেমিশে একাকার….
ঘিরে ধরেছে আমায়।
আমি যেনো এক মেঘের আস্তরনের ঘেরাটোপে
হটাৎ নিজেকে ফিরে পাই..
ওরা দল বেধে আসে.. আমার চলে যাওয়ার পথে।
আমি থেকে যাই… এক অদৃশ্য ভীড়ে।

আমি থাকি এক নাগরিক জীবনে ।
রঙ বেরঙের নাগরিক ভীড়ে থাকি অষ্ট প্রহর।
সরু মাথা, পেট ফোলা রিকেটি বাচ্চার মতন,
ছায়ার মতন থাকি…থাকি ছারপোকা হয়ে নৈকট্যের চিড় ধরা কার্ণিশে, অস্তিত্ব হীন।
নির্ঘন্ট সূচীতে ব্রাত্য আমি, অপ্রকট যদিও..
এ হাতেই অনাবিল শূন্যতা নিয়ে দেখি,
মরুদ্দানে মায়াবী জলের ছায়া
ঢেকে যায় দু চোখে অনিবার তৃষা।
এ কেমন নাগরিকত্ব দিলে আমায় প্রভু,
আমার ফুটপাতে ভেসে যায় বুভুক্ষু শ্রমিকের খিদে,
গুনতিতে পাজর কম প’ড়ে যায়,
দৃষ্টি হীন মানবিক ক্ষরায় শুকনো হৃদয়
হাততালি দেয়, জ্বলন্ত অঙ্গারে।
তবুও থাকি, আমি থাকি, এ বিদগ্ধ জন সমাজে, এঁটুলির দম নিয়ে,
পথে ঘাটে মাঠে নাগরিকত্বের শ্রেণী বিন্যাসে।
ছায়ার মতন থাকি, আগাছার মতো থাকি,
ছাই চাপা আগুনের ধিকৃত ধোয়ার মতন,
তবু দাঁত বার করা কলগেট হাসি নিয়ে আছি
অস্তিত্ব জাহিরে,
হে প্রভু এ কেমন নাগরিক আমি?

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com