Breaking News
Home / Breaking News / চাঁদপুর চান্দ্রায় মসজিদের ক্যাশ বাক্স খুলতে গিয়ে চোর আটক

চাঁদপুর চান্দ্রায় মসজিদের ক্যাশ বাক্স খুলতে গিয়ে চোর আটক

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
চাঁদপুর সদর উপজেলার ১২ নং চান্দ্রা ইউনিয়নে মসজিদের ক্যাশ বাক্স তালা খুলতে গিয়ে হাতেনাতে এক চোরকে আটক করেছে স্থানীয়রা।
শুক্রবার সকালে চান্দ্রা ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড হক মার্কেট জামে মসজিদের তালা খোলার সময় চোরকে আটক করা হয়।
আটক চোরের কাছ থেকে অনেক অত্যাধুনিক চাবি রেইন্স,প্লাস ও তালা খোলার সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।
এর পূর্বেও হক মার্কেট জামে মসজিদে ভিতরে ক্যাশ বাক্স ভেঙ্গে ১০ হাজার টাকা চুরি করেছে চোরচক্ররা।
চোর চক্রের হোতা মাথায় টুপি পাঞ্জাবি পড়ে নামাজ পড়ার অজুহাত দেখিয়ে হক মার্কেট জামে মসজিদের ভিতরে প্রবেশ করে। এসময় সে মসজিদের ভিতরে বাকসার তালা খুলতে থাকে। স্থানীয় এক ব্যক্তি মসজিদে কল থেকে পানি আনতে গেলে ভিতরে চোরকে দেখতে পায়।
ঠিক সে সময় হাতেনাতে চোর চক্রের হোতা কে তালা খোলার সরঞ্জামসহ আটক করে।
আটক চোর বালিয়া ইউনিয়নের ব্রাহ্মণ সাকুয়া গ্রামের বাসিন্দা।
চোর আটকের খবর শুনে হক মার্কেট জামে মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের,সহ-সম্পাদক জাহাঙ্গীর, ফারুক ,নজির গাজী, নুরু মুন্সিসহ এলাকার কয়েকজন সালিশি এসে চোরকে নিয়ে রাফা রাফা করতে বসে।
পরে চোরের কাছ থেকে মসজিদের পূর্বের খোয়া যাওয়া ১০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ নেয়। এছাড়া স্থানীয় দালাল চক্ররা চোরের তকদির করে তার কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়ে তাকে ছাড়িয়ে দেয়।
মসজিদের ভিতর থেকে চোর আটক হওয়ার ঘটনাটি ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারকে না জানিয়ে মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের ও দালাল চক্ররা টাকার বিনিময় রফাদফা করে তাকে ছেড়ে দেওয়ায় স্থানীয়দের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।
এই বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান খানজাহান আলী কালু পাটোয়ারী জানান, মসজিদের ভিতরে চুরি করতে গিয়ে চোর আটক হওয়ার ঘটনাটি আমাকে কেউ জানায়নি তবে এরপূর্বে এলাকায় অনেক মসজিদ থেকে চোর চক্ররা ক্যাশবাক্স ভেঙ্গে টাকা চুরি করেছে।
যারা চোরকে টাকার বিনিময় থেকে ছেড়ে দিয়েছে তারাও একই অপরাধে অপরাধী। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।
এ বিষয়ে ওয়ার্ড মেম্বার জানান, চুরির ঘটনায় যে চোরকে আটক করা হয়েছে সে এর পূর্বে অনেক চুরির ঘটনা সংঘটিত করেছে। তাকে এভাবে ছেড়ে দেওয়া ঠিক হয়নি যারা এমনটি করেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন। চোরকে আটকের পর ছেড়ে দেওয়ার কারণে সেই চোরা অন্য জায়গায় চুরি করতে সাহস পাচ্ছে।

এই বিষয়ে চোরকে নিয়ে সালিশি বৈঠক করে রফাদফার বিষয়ে মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের জানান, এই মসজিদে এর পূর্বে ১০ হাজার টাকা চুরি হয়েছে। একই কায়দায় এই চোর আবারো মসজিদের ভিতরে ঢুকে ক্যাশ বাক্স ভেঙ্গে টাকা চুরি করার সময় তাকে স্থানীয়রা আটক করে। তবে চোরের বাবা এলাকায় বিয়ে করেছে বিধায় তার আত্মীয় স্বজনদের কথা চিন্তা করে চোরকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া চোর ছেড়ে দেওয়া না দেওয়ার বিষয়টি একান্ত আমাদের। এই বিষয়ে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের ও পুলিশের কোনো দায়দায়িত্ব নেই।

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com