Breaking News
Home / Breaking News / চাঁদপুরে দুর্নীতির অভিযোগে আলু বাজার নৌ পুলিশের ২ এএসআইর বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু

চাঁদপুরে দুর্নীতির অভিযোগে আলু বাজার নৌ পুলিশের ২ এএসআইর বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু

ষ্টাফ রিপোটারঃ
চাঁদপুর আলুবাজার নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির ২ এএসআই মহসিন ও মইনুদ্দিনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়ায় তাদেরকে বদলি করা হয়েছে। এর পরেই তদন্ত টিম গঠন করে তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত কার্যক্রম শুরু হয়েছে।
আলুবাজার নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির এই দুই এএসআই অভয়াশ্রম চলাকালীন সময় মেঘনা নদীতে ব্যাপক তাণ্ডব চালিয়েছে ও জেলেদের আটক করে বিকাশের মাধ্যমে টাকা লেনদেন করেছে বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা।
এই দুর্নীতিবাজ নৌ পুলিশের দুই এএসআই মহসিন ও মইনুদ্দিনের প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ টাকা নদী থেকে জেলেদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছে।
দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করে
নৌ পুলিশ সুপার কামরুজ্জামান পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়ার পরেই তাৎক্ষণিক আলু বাজার নৌ পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই মহসিন ও মইনুদ্দিনকে বদলি করে দিয়েছে।
আলু বাজার নৌ পুলিশ ফাঁড়ির এই দুই এএসআই অভয়াশ্রম চলাকালীন সময়ে নদীতে জেলেদের আটক করে আর্থিক লেনদেন ও দুর্ব্যবহার করার ঘটনায় জেলেদের কাছ থেকে অভিযোগ পাওয়ায় পরেই তাদের বিরুদ্ধে দপ্তরিক ভাবে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।
এই দুই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নৌ পুলিশ সুপার কামরুজ্জামান তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করার কারণে মানুষের মাঝে স্বস্তি ফিরে এসেছে।
জেলেরা জানান, নদীতে কাছকি মাছ ধরতে গেলে দুইদিন পূর্বে এএসআই মহসিন ও মইনুদ্দিন জেলেদের আটক করে বিকাশের মাধ্যমে টাকা নিয়ে নদী থেকে ছেড়ে দেয়। আবার যারা টাকা কম দেয় তাদেরকে আটক দেখিয়ে আদালতে প্রেরণ করেন। এবছর জাটকার মৌসুমে এএসআই মহসিন তার বাড়ির পার্সোনাল বিকাশে ০১৮৫৬৯৮৩৩৮৬, ০১৮১৬৩৬১৬০৯,০১৭৬৪৫৮৫৭১৪ তিনটি নম্বরের লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন যা তদন্তে সততা বেরিয়ে আসবে। গত চার দিন পূর্বে একটি স্টিল বডি ট্রলারের কারেন্ট জাল ও পলিথিন জব্দ করে এক লক্ষ ২০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। তাদের নাম্বারে টাকা লেনদেনের সকল তথ্য প্রমাণ রয়েছে। কোন অবস্থাতেই অস্বীকার করার সুযোগ নেই।
এদিকে এএসআই মহিউদ্দিন নদী থেকে ৯ জেলে আটক করে আর্থিক সুবিধা নিয়ে এক জেলেকে ছেড়ে দেয় ও বাকি জেলেদের কাছ থেকে ১৭ হাজার টাকা বিকাশে লেনদেন করার ঘটনা ফাঁস হয়ে যাওয়ায় অভিযুক্ত ২ এএসআইকে বদলি করে দেওয়া হয়।
ঘটনার পরই নৌ পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ঘটনাটি তদন্তে আলু বাজার নৌ পুলিশ ফাঁড়িতে দিয়েছেন ও বিষয়টি গুরুত্বসহকারে তদন্ত করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলে জানিয়েছেন।

নৌ পুলিশ সুপার কামরুজ্জামান জানান, নৌ-পুলিশের কোন পুলিশ কর্মকর্তা দুর্নীতির সাথে জড়িত থাকলে তাদেরকে কোন অবস্থাতেই ছাড় দেওয়া হবে না। তাই দুই পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথেই তাদেরকে বদলি করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে পরবর্তীতে তথ্যপ্রমাণ পাওয়ার পর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

error: Content is protected !!

Powered by themekiller.com